বুধবার ২১ অক্টোবর ২০২০

কার্তিক ৬ ১৪২৭

ই-পেপার
দৈনিক আমার সংবাদ :: Daily Amar Sangbad বুধবার ২১ অক্টোবর ২০২০ | কার্তিক ৬ ১৪২৭

লকডাউনের সময় অর্থ উপার্জন করতে পারেন যেভাবে

Writter

আমার সংবাদ ডেস্ক

০৯:২৫, ৭ মে ২০২০   আপডেটঃ ০৪:৪১, ১৪ জুন ২০২০

লকডাউনের সময় অর্থ উপার্জন করতে পারেন যেভাবে

বিশ্বব্যাপী লাখ লাখ মানুষের জীবন ঝুঁকিতে ফেলার পাশাপাশি অর্থনীতিকেও ধ্বংস করছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারি। করোনার সংক্রমণ কমাতে সরকার জনসাধারণের চলাফেরায় লকডাউন আরোপ করেছে। বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে অনেক চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী এবং শ্রমিক কর্মস্থলে যোগদানের পরিবর্তে ঘরে বসে আছেন। পরিস্থিতি

বিশ্বব্যাপী লাখ লাখ মানুষের জীবন ঝুঁকিতে ফেলার পাশাপাশি অর্থনীতিকেও ধ্বংস করছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারি। করোনার সংক্রমণ কমাতে সরকার জনসাধারণের চলাফেরায় লকডাউন আরোপ করেছে। বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে অনেক চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী এবং শ্রমিক কর্মস্থলে যোগদানের পরিবর্তে ঘরে বসে আছেন। পরিস্থিতি কখন স্বভাবিক গতিতে ফিরে আসবে সে বিষয়েও সবাই সন্দিহান। বিভিন্ন বড় সংস্থা তাদের জনশক্তি হ্রাস করছে এবং কিছু ছোট ও মাঝারি আকারের সংস্থা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এর ফলে অনেকেই চাকরি হারাচ্ছেন বা বেতন থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। তবে সংকটময় এ সময়ে বা লকডাউন চলাকালীন অনলাইন এবং অফলাইনেও অর্থ উপার্জন করা যায়।  অনলাইন গ্রাফিক ডিজাইনের কাজ: আপনি যদি অ্যাডোব ফটোশপ এবং অ্যাডোব ইলাস্ট্রেটরের মতো সাধারণ গ্রাফিক সফ্টওয়্যার পরিচালনায় দক্ষ হওয়ার পাশাপাশি গ্রাফিক ডিজাইনার হয়ে থাকেন তাহলে অনলাইনেই কাজ পেতে এবং ভালো অর্থ উপার্জন করতে পারেন। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মগুলো লোগো ডিজাইন, বিজনেস কার্ড ডিজাইন, ব্যানার ডিজাইন, ব্রোশিওর ডিজাইন ইত্যাদির মতো ছোট-বড় বিভিন্ন প্রকল্পের জন্য গ্রাফিক ডিজাইনার নিয়োগ করে থাকে। অনলাইন মার্কেটিং: আপনি কি বেশির ভাগ সময় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম প্ল্যাটফর্মগুলো (যেমন ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম ইত্যাদি) ব্রাউজ করা পছন্দ করেন? তাহলে অতিরিক্ত অর্থ উপার্জনের জন্য আপনি কেন এ প্ল্যাটফর্মগুলো ব্যবহার করছেন না? আপনি অনলাইনে যেকোনো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে কোনো পণ্যের (অন্য সংস্থার উৎপাদিত) প্রচার চালাতে পারেন, যেখানে আপনি অন্যদের সাথে যোগাযোগ করতে বা ফলোয়ার পেতে পারেন। কোনো ফলোয়ার যদি আপনার পোস্টকৃত লিংকের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন থেকে পণ্য ক্রয় করে তাহলে সহজেই আপনি সেখান থেকে একটি কমিশন উপার্জন করতে পারবেন। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং অনলাইনে অর্থ উপার্জনের একটি জনপ্রিয় উৎস। বিভিন্ন সংস্থার দেয়া লোভনীয় অ্যাফিলিয়েট কমিশন কাঠামোর কারণে অনেকেই বর্তমানে পূর্ণকালীন পেশা হিসেবে এটিকে গ্রহণ করছে। আপনার যদি কিছু এসইও জ্ঞানের সাথে ভালো লেখার এবং ভিডিও তৈরি করার দক্ষতা থাকে তাহলে আপনি ব্লগ বা ইউটিউবের মাধ্যমে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে উপার্জন করতে পারবেন। অনলাইন টিচিং এবং টিউটরিং: অনলাইনে শেখান এবং আপনার জীবনকে সুন্দর করুন। নিজের দক্ষতার ওপর ভিত্তি করে টিউটোরিয়াল তৈরি করতে পারেন এবং লিংকডইন ডটকমের মতো জায়গায় আপনার সোস্যাল মিডিয়া প্রোফাইল প্রচার করতে পারেন। শুরুতে নামমাত্র ফি বা বিনামূল্যে প্রাথমিক স্তরের কিছু কোর্স দিয়ে শুরু করতে পারেন। এরপর শ্রোতা বা দর্শকদের কাছ থেকে সাড়া পেলে আরও ভালো কিছু কোর্স সরবরাহ করুন। অনলাইনে লেখার কাজ: আপনার কি লেখার প্রতি স্বাভাবিক উৎসাহ আছে? উত্তর যদি হ্যাঁ হয়, তাহলে আপনি বিভিন্ন স্থানীয় এবং অনলাইন প্ল্যাটফর্মে ফ্রিল্যান্স লেখক হিসেবে কাজ করতে পারেন। আপনি কোনো শিক্ষানবিশ লেখক বা বিশেষজ্ঞ গবেষক হোন না কেন, অনুবাদের কাজ, গেস্ট, ব্লগ পোস্ট, আর্টিকেল, একাডেমিক এবং বই লেখাসহ গবেষণার মতো ফ্রিল্যান্স কাজও আপনি খুঁজে পেতে পারেন। অর্থ উপার্জনের পাশাপাশি এ কাজ আপনাকে অন্য মানুষদের আলোকিত করার সুযোগ দেবে। অনলাইন প্রোগ্রামিং: আপনি কি কোডিং পছন্দ করেন? পিএইচপি, পাইথন, সি#, জাভা ইত্যাদির মতো কোনো প্রোগ্রামিং ভাষায় দক্ষতা থাকলে আপনি অনলাইনে কাজ পেতে পারেন। দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতার ওপর নির্ভর করে আপনি ফ্রিল্যান্স প্রোগ্রামিং কাজের জন্য আবেদন করতে পারেন। দক্ষতা ভিত্তিক ফ্রিল্যান্সিং: আপনি ডিজাইনার, লেখক বা প্রোগ্রামার না হয়ে থাকলেও চিন্তার কিছু নেই। ইন্টারনেটে বিভিন্ন পেশার মানুষের জন্য ভিন্ন ভিন্ন কাজের সুযোগ রয়েছে। আপনার যদি ব্যবসার পরিকল্পনা, প্রকল্প পরিচালনা, ডিজিটাল মার্কেটিং ইত্যাদি জ্ঞানের কোনো নির্দিষ্ট বিষয়ে দক্ষতা থাকে তাহলে আপনি আন্তর্জাতিক বাজারে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে কাজের খোঁজ করতে পারেন। সরবরাহের কাজ: এখন পর্যন্ত আমরা স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক বেশ কয়েকটি প্ল্যাটফর্ম নিয়ে আলোচনা করেছি যেখানে দক্ষ ব্যক্তিরা অনলাইনে তাদের দক্ষতা বিক্রয় করতে পারেন। কিন্তু আপনার যদি অনলাইনে বিক্রয় করার জন্য বিশেষ কোনো দক্ষতা না থাকে তাহলে সংসার চালানোর মতো কাজ কীভাবে খুঁজে পাবেন তাই ভাবছেন? চিন্তার কিছু নেই, ইচ্ছা থাকলেই উপায় হয়। বর্তমান লকডাউন পরিস্থিতিতে প্রয়োজনীয় পণ্য ক্রয়ের ক্ষেত্রে বিভিন্ন অনলাইন শপের ওপর মানুষের নির্ভরশীলতা প্রতিনিয়তই বাড়ছে। মুদি, রান্না সামগ্রী, ওষুধ, শিশুদের বিভিন্ন পণ্যসহ নানা ধরনের পণ্য অনেকে অনলাইনেই অর্ডার করছেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে অনেক প্রতিষ্ঠান ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় পণ্য সরবরাহ করার জন্য বাড়তি লোকবল নিয়োগ করছে। একজন সুস্থ ব্যক্তির যদি একটি মোটরসাইকেল বা বাইসাইকেল থেকে থাকে তাহলে তিনি সহজেই সরবরাহ কাজের জন্য আবেদন করতে পারেন।

আমারসংবাদ/জেআই##!!##

আমার সংবাদ

Lifebouy
ads
Lifebouy
Capture
Capture